‘সরকার সুযোগ দিচ্ছে বলেই বাড়িতে যাচ্ছি

খোলা চেকপোস্টে দ্বিতীয় দিনের মতো স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়েই ঈদে বাড়ি ফিরছে মানুষ। তবে রাস্তায় চাপ কিছুটা কম। ভাড়ায় চলছে ব্যক্তিগত গাড়িও। বাস না থাকায় অন্যান্য যানবাহনে গাদাগাদি করে বাড়তি ভাড়ায় অনেকে ফিরছেন গ্রামে।

নেই কোনো চেক পোস্ট, নেই পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদ। তাই বাধাহীনভাবে যে যেভাবে পারছেন ছুটে চলেছেন বাড়ির পথে।
একজন বলেন, ‘সরকার সুযোগ দিচ্ছে বলেই বাড়িতে যাচ্ছি। না হলে এই লকডাউনের মধ্যে যেতাম না।’

গত বৃহস্পতিবার থেকে ব্যক্তিগত গাড়ি চলাচলে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ায় ঈদের ছুটিতে শনিবার সকাল থেকে এভাবেই শত শত মানুষকে ঢাকা ছাড়তে দেখা যায়।
দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বাড়লেও ঘর ফেরত মানুষের মাঝে তার কোনো বালাই ছিল না। গণপরিবহন না থাকায় কেউ ব্যক্তিগত গাড়ি, কেউ কাভার্ড ভ্যান কেউবা আবার মোটর বাইকে চড়ে ফিরছেন নিজ গন্তব্যে। কোথাও আবার কয়েকজন মিলে ভাড়া গাড়িতে সামাজিক দূরত্ব না মেনে গাদাগাদি করে ঢাকা ছাড়তে দেখা গেছে।

চেক পোস্ট না থাকলেও স্বাস্থ্যবিধি মানাতে পুলিশ সড়কে রয়েছে বলে জানিয়েছেন তারা।
একজন কর্মরত পুলিশ বলেন, আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি। তাদের বোঝাচ্ছি যেন সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখে।
প্রতি বছর প্রায় এক কোটি লোক ঈদ করতে রাজধানী ছেড়ে গ্রামে গেলেও এবার করোনা ভাইরাসের কারণে প্রেক্ষাপট ভিন্ন।

Sharing is caring!