চাল নিতে আসা জেলের হাত ভেঙে দিলেন ইউপি চেয়ারম্যান

মুলাদীতে নাজিরপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও তার লোকজন চাল নিতে আসা জেলেদের ওপর হামলা চালিয়েছে। তারা এক হতদরিদ্র জেলের হাত ভেঙে দিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে এ হামলার ঘটনা ঘটে। ওই সময় আরও ১০ জেলে আহত হয়েছেন বলে জানান স্থানীয়রা।

জানা গেছে, কিছুদিন আগে নাজিরপুর ইউনিয়নের ১০-১২ জন জেলে নাজিরপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু হাসানাত জাপানের বিরুদ্ধে চাল বিতরণের অনিয়মের অভিযোগ এনে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে বিচার দাবি করেন। জেলেদের অভিযোগের ভিত্তিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শুভ্রা দাস সিনিয়র উপজেলা মৎস্য অফিসার মাহমুদুল হাসানকে তদন্তের নির্দেশ দিলে তিনি অভিযোগের সত্যতা পান এবং গত ২২ এপ্রিল তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেন।

তদন্ত প্রতিবেদনের আলোকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজিরপুর ইউপি চেয়ারম্যানকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিলে তিনি ক্ষিপ্ত হন এবং অভিযোগকারী জেলেদের দেখে নেয়ার হুমকি দেন। উপজেলা মৎস্য অফিসারের নির্দেশে অভিযোগকারী জেলেরা বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে নাজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চত্বরে চাল নিতে যান।

এ সময় ৪০ কেজির স্থলে ২৭/২৮ কেজি চাল দেয়ায় জেলেরা প্রতিবাদ করলে ইউপি চেয়ারম্যান ও তার লোকজন হামলা চালায়। হামলায় ওই ইউনিয়নের চিলমারী গ্রামের মকবুল খানের ছেলে কবির খানের হাত ভেঙ্গে যায়। এ ছাড়া মকবুল খান, শওকত সরদার, তুহিন সরদার, সানাউল্লাহ খান, আমির সরদার, লালমিয়া খান, মঞ্জু বেপারী, জসিম খানসহ কমপক্ষে ১০ জন আহত হন।

স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে মুলাদী হাসপাতালে ভর্তি করলে কর্তব্যরত ডাক্তার কবির খানকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

এ ঘটনায় মকবুল খান বাদী হয়ে ইউপি চেয়ারম্যানসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মুলাদী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে নাজিরপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু হাসানাত জাপান জেলেদের ওপর হামলার বিষয়টি অস্বীকার করে জানান, কিছু জেলে ইউনিয়ন পরিষদে হামলা চালিয়ে তার লোকজনদের আহত করেছে।

মুলাদী থানার ওসি ফয়েজ উদ্দীন মৃধা জানান, নাজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান ও সাধারণ জেলেরা পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করেছেন। তদন্তপূর্বক যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Sharing is caring!