বৈধ পন্থায় আমেরিকা যাওয়ার ইচ্ছে স্বপ্নের ডিবি লটারি দুয়ার আবার খুললো

বৈধ পন্থায় আমেরিকা যাওয়ার সপ্ন অনেকেরই। সেই সপ্নপূরনের পথে আরেকধাপ ডাইভার্সিটি ভিসা বা ডিভি লটারি। প্রতি বছরের মত এবারো যুক্তরাষ্টের পররাষ্ট মন্ত্রনালয় আয়োজন করেছে ডাইভার্সিটি ভিসা বা ডিভি-২০১৭ কর্মসূচী।
INSTRUCTIONS FOR THE 2021DIVERSITY IMMIGRANT VISA PROGRAM (DV 2021)প্রতিবছর বিভিন্ন দেশের প্রায় ৫৫০০০ লোক লটারীর মাধ্যমে এই ভিসা কর্মসুচীর আওতায় আমেরিকায় স্থায়ীভাবে বসবাসের সুযোগ পায়।এই ভিসার জন্য আবেদন করতে কোনো ফি দিতে হয় না। শুধু ডিভি বিজয়ীদের ভিসা গ্রহনের সময় নির্ধারীত ফি দিতে হয়।আবেদন করার সময় যা যা পূরন করতে হবেঃডিভি ওয়েবসাইটের নির্ধারিত আবেদনের ফরমে লিম্নলিখিত জিনিসগুলো সতর্কতার সহিত পূরন করবেনঃ
১। আবেদনকারীর পুরোনাম
২। জন্মতারিখ
৩। জন্মস্থান ( প্রার্থী যে শহরে/জেলায় জন্মগ্রহন করেছে/জন্মনিবন্ধন কার্ডে যা উল্লেখ আছে)
৪। দেশ
৫। আবেদনকারীর ছবি
৬। পুর্ণঠিকানা
৭। বর্তমানে যেই দেশে বসবাস করছেন।
৮। ফোন নম্বর ( যদি থাকে)
৯। ই-মেইল এড্রেস ( যদি থাকে)
১০। সর্বোচ্চ শিক্ষাগত যোগ্যাতা
১১। বৈবাহিক অবস্থা
১২। সন্তানের সংখ্যা ( সন্তানের বয়স ২১ বছরের নিচে হলে )
১৩। স্বামী/ স্ত্রী সংক্রান্ত তথ্য (আবেদনকারী স্বামী হলে এই অংশে স্ত্রীর তথ্য দিতে হবে)
১৪। সন্তান সংক্রান্ত তথ্য

একজন আবেদনকারী একটির বেশি আবেদন করতে পারবেন না। তবে স্বামী-স্ত্রী পৃথকভাবে দুইটি আবেদন করতে পারবেন। আবেদন প্রক্রিয়া সফল্ভাবে সম্পন্ন হলে একটি “কনফার্মেশন নাম্বার” সহ আবেদনকারীর নাম ও জন্মসাল দেখানো হবে। ডিভির পরবর্তি ধাপের জন্য এই তথ্যগুলো সংরক্ষন করে রাখা জরুরী।পরবর্তি সময়ে অনলাইনে ভিসা প্রাপ্তি কিংবা স্ট্যাটাস জানতে এই তথ্যসমুহের দরকার হবে।
এই প্রোগ্রামের আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হবে ১লা অক্টোবর মধ্যহ্ন থেকে। আবেদনপত্র জমা দেয়ার শেষ সময় ৩রা নভেম্বর মধ্যরাত পর্যন্ত। ডিভির ফল পাওয়া যাবে আগামী বছরের ১লা মে থেকে ৩০ই জুন পর্যন্ত অনলাইনে।
১লা অক্টোবর থেকে আবার শুরু হচ্ছে বৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার জন্য স্বপ্নের ডিবি লটারি। ২০১৭ সালের ডাইভারসিটি ভিসা (ডিবি) কর্মসূচি চালু হবে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।তবে এবারো বাংলাদেশসহ ১৮টি দেশের নাগরিকরা ডিবিতে আবেদন করতে পারবেন না। এর কারণ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এসব দেশ গত ৫ বছরে ৫০ হাজারের বেশি করে অভিবাসী যুক্তরাষ্ট্রে পাঠিয়েছে।বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত, পাকিস্তান, ব্রাজিল, কানাডা, কলম্বিয়া, চীন, ফিলিপাইন, ডমিনিক প্রজাতন্ত্র, ইকুয়েডর, এল সালভাদর, হাইতি, জ্যামাইকা, মেক্সিকো, নাইজেরিয়া, পেরু, দক্ষিণ কোরিয়া, ভিয়েতনাম ও যুক্তরাজ্যের (উত্তর আয়ারল্যান্ড বাদে)নাগরিকরা ডিবি ২০১৬ এর জন্য যোগ্য নয়।

অন্যান্য দেশের নাগরিকরা ১লা অক্টোবর থেকে ৩ নভেম্বর পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন। পরবর্তীতে কম্পিউটার নিয়ন্ত্রিত লটারির মাধ্যমে বিজয়ীদের বাছাই করা হবে।ডিভি লটারি-২০২১ এ বাংলাদেশিরা আছে কি?যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশের মানুষের জন্য অনেক প্রত্যাশার। অনেকের জন্য এটা স্বপ্নের মত। আর এটা পেতে হলে ভাগ্য পরীক্ষা দিতে হয়। এই পরীক্ষাকে বলা হয় যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসনের জন্য বিশেষ কর্মসূচি ডিভি (ডাইভারসিটি ইমিগ্র্যান্ট ভিসা প্রোগ্রাম)। এ লটারি কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হবে ২০২১ সালে। আর এ লটারিতে এবারও বাংলাদেশিরা অংশ নেওয়ার সুযোগ পাচ্ছে কি না এটা নিয়ে সকলের প্রশ্ন।এই প্রশ্নের জবাব দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের ডিভি লটারি কর্তৃপক্ষের ওয়েবসাইটে। তারদের জবাবে এবারও কোন আশার বাণি নেই। তাদের ভাষ্য, বাংলাদেশসহ ১৮টি দেশ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে ইতমধ্যেই উচ্চহারে অভিবাসন নিয়েছে। যার কারণে এসব দেশের নাগরিকরা এবারও লটারির জন্য আবেদন করতে পারবেন না।
ডিভি লটারি ২০২১-এর আওতায় চলতি বছর লটারির মাধ্যমে মোট ৫৫ হাজার বিদেশি যুক্তরাষ্ট্রের গ্রিন কার্ড পাবেন। লটারির মাধ্যমে নির্বাচিত অভিবাসীরা ২০২১ সালের জানুয়ারি মাসে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করার অনুমতি পাবেন।
যেসব দেশের নাগরিকরা ডিভি লটারির জন্য আবেদন করতে পারবেন না সেগুলোর মধ্যে ভারত, পাকিস্তান, যুক্তরাজ্য (উত্তর আয়ারল্যান্ড ছাড়া) ও কানাডা রয়েছে।ডিভি লটারীতে সুযোগ পাবেনা যেসব দেশ- বাংলাদেশ, ব্রাজিল, চীন, কলম্বিয়া, ডমিনিকান রিপাবলিক, এল সালভাদর, হাইতি, জ্যামাইকা, মেক্সিকো, পেরু, ফিলিপিনস, ভিয়েতনাম, দক্ষিণ কোরিয়া ও নাইজেরিয়া।তবে চীনের মূল ভূখণ্ডের বাইরে হংকং, ম্যাকাও ও তাইওয়ানে জন্মগ্রহণকারীরাও যোগ্য বলে বিবেচিত হবেন।পাঁচ বছরে অভিবাসনের কোটা পূরণ হয়ে যাওয়ার কথা বলে বাংলাদেশ ছাড়াও আরও ১৮টি দেশের জন্য ২০১৩ সালের ডিভি লটারিতে অংশ নেওয়ার সুযোগ বন্ধ ঘোষণা করে যুক্তরাষ্ট্র। এর পর থেকে বাংলাদেশের নাগরিকদের ডিভি লটারির সুযোগ বন্ধই রয়েছে।

Sharing is caring!