বাস ও ট্রেন চালু নিয়ে যা বলল কর্তৃপক্ষ

বাংলাদেশের করোনা পরিস্থিতিকে কোনো অবস্থায়ই ভালো বলা যাচ্ছে না। দফায় দফায় বাড়ছে সাধারণ ছুটি, স্থবির হয়ে পড়েছে দেশের অর্থনীতি। দেশের অর্থনীতি বাঁচাতে করোনা নির্মূল না হলেও সীমিত পরিসরে গণপরিবহন চালু করার কথা ভাবছে সরকার। একটি সূত্রের মাধ্যমে জানা গেছে, সামনের সপ্তাহে এ ঘোষণা হলেও হতে পারে। প্রথম ধাপে ব্যক্তিগত যানবাহন চালু হবে। দ্বিতীয় ধাপে প্রতিদিন নির্দিষ্ট সংখ্যক যাত্রী নিয়ে চলবে ট্রেন। পরের ধাপে বাস ও লঞ্চ চালু হতে পারে। তবে এ নিয়ে চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত এখনো হয় নি।

স্টেশনের পরিবর্তে অনলাইনে টিকিট বিক্রির পরিকল্পনাও রয়েছে রেলের। সরকারের ঘোষণা পেলে বাস্তবায়নে যাবে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। আর গণপরিবহন সচল হতে থাকলে শেষভাগে সুযোগ দেওয়া হতে পারে নৌপথে যাত্রী পরিবহন। তবে সরকারের সিদ্ধান্তের ওপর সবকিছু নির্ভর করছে। কোভিড-১৯ পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতি হলে সেই সিদ্ধান্ত হতে পারে।

সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব নজরুল ইসলাম বলেন, আপাতত গণপরিবহন চালুর বিষয়ে চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খোন্দকার এনায়েত উল্যাহ বলেন, আমাদের কোনো সিদ্ধান্ত নেই। আমরা তাকিয়ে আছি সরকার প্রধানের দিকে। সরকার অনুমতি দিলেই আমরা কেবল বাস চালাবো। বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক মো. শামসুজ্জামান বলেন, সরকার যাত্রীবাহী ট্রেন চালানোর সিদ্ধান্ত দিলেই কেবল ট্রেন চলবে। আমরা সরকারের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছি।

Sharing is caring!