ব্রেকিং নিউজ, খালেদা জিয়াকে বিশেষ বিমানে বিদেশে নিতে চান নেতারা শারীরিক অবস্থা খারাপ

নেত্রী চাইলে বিশেষ বিমানে দেশের বাইরে যাওয়ার সুযোগ দেয়ার দাবি জানিয়েছেন তার আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন। একই সঙ্গে মুক্তির মেয়াদ বাড়ানোরও দাবি জানিয়েছেন তিনি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, এ বিষয়ে তাদের কিছু করার নেই। দুদক আইনজীবী বলছেন, বিদেশ যেতে হলে সরকারের পাশপাশি আদালতেরও অনুমতি নিতে হবে।
৬ মাসের কারামুক্তির প্রায় ৩ মাস শেষ হতে চললো বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার। করোনা পরিস্থিতির কারণে এই তিনমাস ঘরবন্দি বিএনপি নেত্রী। চিকিৎসারও সুযোগ পাননি বলে জানিয়েছে দলটি। ফলে মেয়াদ শেষ হলে কি হবে তা নিয়েই উদ্বিগ্ন বিএনপি ও তার আইনজীবীরা।বেগম জিয়ার আইনজীবীর দাবি, বাড়ানো হোক মুক্তির মেয়াদ। নেত্রী চাইলে চিকিৎসার জন্য বিশেষ বিমানে দেশের বাইরে যাওয়ার সুযোগ দেয়া হোক ।
তবে শুরু থেকেই মুক্তির প্রক্রিয়া নিয়ে আপত্তি জানিয়ে আসছিলেন দুদক আইনজীবী। এ বিষয়ে খালেদা জিয়ার মামলার দুদক আইনজীবী বলেন, বিদেশে যাওয়ার সুযোগ দেয়ার প্রশ্নই আসে না। আর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলছেন, এ বিষয়ে তাদের কিছুই করার নেই। তবে আদালত অনুমতি দিলে আপত্তি নেই সরকারের।মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই মেয়াদ বাড়ানো এবং মুক্তির শর্ত শিথিল করে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসার জন্য আবেদন করা হবে বলে জানিয়েছেন বিএনপির আইনজীবীদের একটি সূত্র
করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।বুধবার মন্ত্রীর জনসংযোগ কর্মকর্তা লতিফ বকশী গণমাধ্যমে আক্রান্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।এদিকে গতকাল মঙ্গলবার করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন দুই সংসদ সদস্য। তারা হলেন সাবেক প্রধান হুইপ উপাধ্যক্ষ আবদুস শহীদ এবং গণফোরামের নেতা মোকাব্বির খান। বাণিজ্যমন্ত্রীকে নিয়ে মোট ১২ সংসদ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।এর আগে ১৪ জুন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শেখ মো. আব্দুল্লাহ।দেশে মোট করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৯৮ হাজার ৪৮৯ জন। আর এখন পর্যন্ত এ ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১ হাজার ৩০৫ জন।বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসে ৪ লাখ ৪৬ হাজার ছাড়ালো প্রাণহানি। সংক্রমিত সাড়ে ৮২ লাখ মানুষ। ২৪ ঘণ্টায় আবারও বাড়লো মৃত্যুহার আর সংক্রমণ। একদিনে বিশ্বে সাড়ে ৬ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণ কেড়ে নিলো করোনাভাইরাস। দৈনিক হিসাবে রেকর্ড এক লাখ ৪২ হাজারের বেশি মানুষ করোনায় শনাক্ত হলেন।ব্রাজিলে একদিনের হিসাবে ১হাজার ৩০০ এর বেশি প্রাণহানি এবং ৩৭ হাজারের বেশি রোগী শনাক্ত গড়লো নতুন রেকর্ড।এদিকে পাঁচদিন পর আবারও একদিনে সর্বোচ্চ ৮৪৯ জনের মৃত্যু দেখলো যুক্তরাষ্ট্র। সবমিলিয়ে দেশটিতে ভাইরাসজনিত কারণে এক লাখ ১৯ হাজার ছাড়ালো প্রাণহানি। হঠাৎ করে ছয়টি রাজ্যে বেড়েছে শনাক্তের হারও। মোট ২২ লাখের কাছাকাছি সংক্রমিত।এছাড়া ইউরোপের প্রায় সব দেশেই মৃত্যু দুই অংকে নেমে এসেছে। নতুনভাবে সংক্রমণও খুব কম। কিন্তু লকডাউন প্রত্যাহারের কারণে রয়ে গেছে দ্বিতীয় দফায় মহামারি ছড়ানোর শঙ্কা।

Sharing is caring!