দ্বিতীয় বিয়ে করায় স্বা’মীর বি’শেষ অ’ঙ্গ কে’টে দি’ল স্ত্রী

প্রথম স্ত্রীর অমতে দ্বিতীয় বিয়ে করার খেসারত দিতে হল প্রবাসী স্বামীকে। নিজের পুরুষাঙ্গ হারিয়ে ওই প্রবাসী এখন মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছেন। আলোচিত এই ঘটনাটি ঘটেছে রোববার রাত ২টার দিকে হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়নের আলীনগর গ্রামে।
ওই প্রবাসী সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।এলাকাবাসী জানায়, আলীনগর গ্রামের ইছাক মিয়া (৩৫) একই গ্রামের ছিদ্দিক আলীর কন্যা দিলারা খাতুনকে বিয়ে করেন ৮/১০ বছর আগে। তাদের দুইটি সন্তান রয়েছে। ১৫ বছর ধরে ইছাক সৌদি আরব আছেন। ৩ বছর আগে তিনি দেশে এসে একই ইউনিয়নের উসমানপুর গ্রামের এক তরুণীকে বিয়ে করেন। কিন্তু সেই বিয়ে মেনে নিতে পারেননি প্রথম স্ত্রী দিলারা।

দ্বিতীয় বিয়ে করার কারণে স্বামী স্ত্রীর মাঝে ঝগড়া লেগেই থাকতো। লকডাউনের ২০ দিন পুর্বে প্রবাসী ইউসুফ বাড়িতে আসেন। বাড়ি আসার পর স্ত্রী দিলারার অমতে তিনি দ্বিতীয় স্ত্রীর বাড়িতে যাতায়াত অব্যাহত রাখেন। রোববার রাতে পিঠা খাইয়ে স্বামীকে অচেতন করে স্বামীর বিশেষ অঙ্গ কেটে নেন। ইছাকের চিৎকারে এলাকাবাসী ঘটনাস্থলে এসে আহত অবস্থায় হাসপাতালে প্রেরণ করেন। স্বামীর বিশেষ অঙ্গ ব্যাগে করে নিয়ে প্রথম স্ত্রী নিরুদ্দেশ।সিলেট ওসমানী হাসপাতালের চিকিৎসক বলেছেন,

১২ ঘণ্টার মধ্যে কাটা অঙ্গ সংযোজন না করলে রোগীকে বাঁচানো কঠিন হয়ে পড়বে।আরো পড়ুন ‘‌ভ’য়ানক সময়ের মধ্যে ছিলেন সুশান্ত’, সুশান্তের জীবন নিয়ে মা’রাত্মক তথ্য দিলেন‌ বন্ধু স্বপ্না সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃ’ত্যু বলিউডে এক গভীর শোকের ছায়া নিয়ে এসেছে। অনেকেই এখনও মেনে নিতে পারছেন না যে সুশান্ত সিং রাজপুত বেঁচে নেই। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সুশান্তের আত্মা’র শান্তি কামনা করছেন মানুষ। কিন্তু তার মধ্যেই অনেকের মনে একটা প্রশ্ন ঘুরে বেড়াচ্ছে ক্রমাগত, কেন এমন ভাবে মৃ’ত্যু হল কেরিয়ারের মধ্যগগনে থাকা সুশান্তের?‌

আর তাই নিয়েই মুখ খুললেন বিখ্যাত হেয়ার স্টাইলিস্ট স্বপ্না ভবনানি। তিনি ট্যুইটারে লিখলে, ‘‌মা’রাত্মক এক কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিলেন সুশান্ত সিং রাজপুত। কেউ তাঁকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়নি। তিনি ট্যুইটারে লিখেছেন, ‘‌এটা এখন সবাই জানে, শেষ কয়েকবছর ধরে এক কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছেন সুশান্ত সিং রাজপুত। এই ইন্ডাস্ট্রির কেউ তাঁর পাশে দাঁড়ায়নি, সাহায্যের হাত বাড়ায়নি। আর আজ একটা ট্যুইট করে দুঃখ প্রকাশ করার অর্থ কতটা ফাঁপা এই ইন্ডাস্ট্রির ভিতরটা। এখানে কেউ কারওর বন্ধু নয়। RIP’‌এখনও স্পষ্ট নয়, অর্থ সংকট,সম্পর্কের জটিলতা না অন্য কোনও কারণ মৃ’ত্যু ডেকে এনেছে সুশান্তের। এখনও বোঝা যাচ্ছে না, ঠিক কী’ হয়েছিল তাঁর যার জন্য তিনি এই চরম সিদ্ধান্ত নিলেন। যদিও,সুশান্তের বন্ধুমহল থেকে নানারকম তথ্য বারবার উঠে আসছে।

Leave a Reply

Sharing is caring!